ট্যালি (ধারাবাহিক) পর্ব-৫

[ প্রথমে আমরা কিছু বেসিক কায়দা-কানুন/নিয়ম জেনে নিই, এরপর প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করা হবে। ]

পর্ব-৪ এ , কোম্পানী তো হয়ে গেল। এবার আসুন , দেখা যাক কিভাবে একটি কোম্পানীর লেন-দেন গুলো কে ট্যালিতে লিপিবদ্ধ করতে পারি।

ট্যালিতে লেনদেন লিপিব্ধ করতে ,

প্রথমেই,

লেজার বুক তৈরি,

অতপর, Read the rest of this entry »

ট্যালি (ধারাবাহিক) পর্ব-৪

 

এই পর্বে আমার দেখবো ট্যালিএ স্ক্রীন পরিচিত , কি ভাবে কোম্পানী তৈরি, মডিফাই বা অল্টার এবং ডিলিট করা যায়, কোম্পানী ডাটা ব্যাক আপ, রিস্টোর করা যায়।

স্ক্রীন পরিচিতঃ

ট্যালি চালু করুন। Read the rest of this entry »

ট্যালি (ধারাবাহিক) পর্ব-৩

 

ট্যালি নেটওয়ার্ক কনফিগারঃ

এ সুবিধা কেবল মাত্র ট্যালির গোল্ড এডিশনে।

এই পর্বে আমরা দেখবো, কিভাবে লোকাল সার্ভারের সাথে ক্লায়েন্ট কম্পিউটারে লিংক করা যায়।

সাধারন ভাবে আপনি ট্যালি ইন্সটল করার পরই তা ব্যবহার করতে পারবেন, কিন্তু নেটওয়ার্কে ব্যবহার করার জন্য আপনাকে প্রথমে তা কনফিগার করে নিতে হবে। Read the rest of this entry »

ট্যালি (ধারাবাহিক) পর্ব-২

 

 

ইন্সটেলেশনঃ

আমি এখানে ভার্সন ৯ এর উপর ভিত্তি করে টিউটোরিয়াল লিখছি। তবে আপনি চাইলে এর বর্তমান ভার্সন ৯ ই. পি . আর ব্যবহার করতে পারেন।

Read the rest of this entry »

ট্যালি (ধারাবাহিক) পর্ব-১

 

আবারও আরেকটি ধারাবাহিক টিউনস এ স্বাগতম জানাচ্ছি। ট্যালি নিয়ে দেখলাম অনেকেরই আগ্রহ রয়েছে। তাদরে জন্য আমার এই টিউনস শুধু মাত্র টেক টিউনস এ। [ বিজ্ঞাপন ধর্মী হয়ে গেছে]

ট্যালি দিয়ে খুব সহজেই আপনার প্রতিষ্ঠানের হিসাব নিকাশ কে কম্পিউটারাইজ করে নিতে পারেন।

এর ফিচারগুলো নিম্নে দেওয়া হলঃ Read the rest of this entry »

ছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য একাউন্টিং সফট

অনেকই আছে তার নিজের প্রতিষ্ঠানে হিসাব নিকাশ করার কম্পিউটার ব্যবহার করে। এ কাজে তারা হয়তো এক্সেল ব্যবহার করে। আজ আমি তাদের জন্য বেশ ভাল একটা একাউন্টিং সফট এর খোজ দিচ্ছি, তাও ফ্রী তে। এক্সপ্রেস একাউন্টিং হল বেশ সহজ এবং সরল ইন্টারফেইস ভিত্তিক একটা স্মল একাউন্টিং সমাধান।


প্রথমে দেখে নিই এই সফট দিয়ে কি কি করা যাবে:

1. Inventory

2. Purchase

3. Sales

4. Bank

5. Account

6. Report

এই সফট এর ডাটাবেইসটা করা হয়েছে একসিস দিয়ে, তাই আপনার কম্পিউটারে মাইক্রোসফট একসিস ইন্সটল করা থাকতে হবে। তো ঝটপট ডাউনলোড করে নিন।

বাংলাদেশে ফ্রী কল করার কিছু হিডেন টিপস

আজব নিউজ! বাংলাদেশে ফ্রী কল।

সম্ভব।


ফ্রী কল করার জন্য
www.lowratevoip.com
হতে তাদের ডায়ালার
ডাউনলোড
করুন। ডায়ালার টি সেটআপ করে একটি একাউন্ট তৈরি নিন।

এবার টেস্ট কল হিসাবে বাংলাদেশের যে কোন একটি টি এন্ড টি নম্বার ডায়াল করুন।
ডায়াল করুন এই ভাবে ৮৮০৩১৬৮XXXX

বিনা ক্রেডিট এ ফ্রী টাইম শেষ হয়ে গেলে আপনি পুনরায় এই সুযোগ গ্রহন করার
জন্য

  • প্রথমে control panel এ আসনু , add-remove  হতে lowratevoip  কে আনইন্সটল করে
    নিন।
  • এবার
    এই
    লিংক
    হতে রেজ ক্লিনার সফটি ডাউনলোড করে সেটআপ করুন এবং তা রান করুন[ এটি
    ভিস্তায় রান হয় না]।
  • এবার আনইন্সটল ইনফরমেন হতে লো-রেইট ভি.ও.আই.পি  ইনফরমেশন রেজি এন্ট্রিটি খুজুন
    এবং তা সিলেক্ট করে মুছে ফেলুন।

এখন নতুন করে আবার লো রেইট ডায়ালারটি সেট করে, নতুন একটি একাউন্ট তৈরি করে নিন
এবং পুনরায় ফ্রী কল করুন।

এবার আসুন আরো কিছু জানার চেস্টা করি

আপনি যদি তাদের সাইটে হতে ক্রেডিট ক্রয় করেন তাহলে , এই ক্রেডিট ব্যবহার করে ৩০
দিনের মধ্যে মোট ৩০০ মিনিট ফ্রী কল করতে পারবেন। ফ্রী দিনগুলোর মধ্যে আপনি টি এন্ড
টির ল্যান্ড লাইনে কল করলে কোন ক্রেডিট কাটবে না। তবে মোবাইলে কল করলে ০.০৭০ করে
ক্রেডিট কাটতে থাকবে। এই ফ্রী টাইমের মধ্যে আপনি চাইলে মোবাইলেও ফ্রী কল করতে
পারেন। ধরে নিন আপনি যাকে কল করছেন তার নম্বারটি হল ০১৭১৬XXXXXX  সাধারন নিয়মে কল
করতে চাইলে তা ডায়াল করতে হয় ৮৮০১৭১৬XXXXXX। কিন্তু আপনি যদি ফ্রীতে কল করতে চান
তাহলে ৮৮০ এর পর অতিরিক্ত আরেকটি ০ ব্যবহার করুন। অর্থাৎ ডায়াল করুন
৮৮০০১৭১৬XXXXXX


তাছাড়াও ফ্রী টাইম শেষ হয়ে গেলেও আপনি উলেখিত পদ্ধতিতে ক্রেডিট কাটবে ০.০৩
করে।

%d bloggers like this: